কিটো ডায়েটের পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া

২০০৬ সাল; আমি তখন স্কুলে পড়ি। হঠাৎ পত্রিকার পাতায় একটি খবরে চোখে আটকে গেল। ২১ বছর বয়সী ব্রাজিলিয়ান এক মডেল Anorexia Nervosa নামক রোগে আক্রান্ত হয়ে মারা গেছে। তখন জানতে পারি, এটি একটি eating disorder.

এই সংবাদে আমাকে যে ব্যাপারটা অবাক করে তা হলো, এই মডেল জিরো ফিগার ধরে রাখতে খাবার পর বমি করে ফেলে দিতেন। এ ঘটনার পর সব মডেলদের জন্য জিরো ফিগারের উপর নিষেধাজ্ঞা আরোপ করা হয়। আমার ধারণা ছিল, এটি হয়তো পাশ্চাত্যদেশের রোগ। আমাদের মতো উন্নয়নশীল দেশের জন্য নয়।

পরে আমি পুষ্টিবিজ্ঞানে পড়ার সুবাদে এই বিরল রোগ নিয়ে বিস্তারিত পড়ার সুযোগ পাই। কিন্তু অতি দুঃখের বিষয় হচ্ছে, ক’দিন আগে আমাদের দেশে সামিন নামে এক কিশোরের মৃত্যু হয় এই Anorexia Nervosa রোগে।

এখন আসি এই রোগটি আসলে কী? এটি হলো বিভিন্ন অস্বাস্থ্যকর ডায়েটে যেমন কিটো, ফাস্টিং ইত্যাদির পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া।এটি এমন একটি eating disorder যা রোগীকে ডায়েটের মাধ্যমে কম ওজন ধরে রাখতে মানসিকভাবে কঠিন করে তোলে। তখন এরা প্রয়োজনীয় খাবারটুকু খেতেও ভয় পায়। তারা ভাবে যদি ওজন বেড়ে যায়! আবার খাবার খেয়ে এদের বমি করার প্রবণতা দেখা দেয়।এ রোগীদের মধ্যে ওজন কমানোর জন্য অত্যাধিক ব্যায়াম করতে দেখা যায়। নেশাগ্রস্ত হবারও আশঙ্কা বাড়ে। এমনকি আত্মহত্যার প্রবণতা দেখা দেয়।

রোগটি বেশি দেখা যায় সৌন্দর্যপ্রিয় ব্যক্তিদের মধ্যে, মডেলদের মধ্যে আবার যারা বডি শেমিং নিয়ে বুলিং এর শিকার যেমনটি কিশোর সামিন। এছাড়াও যে কোনো বয়সে যে কারো এমন হতে পারে। Anorexia Nervosa আক্রান্ত ব্যক্তির নানা সমস্যা দেখা দেয়। যেমন:রশূন্যতা, হৃদরোগ, ভিটামিনের অভাবজনিত রোগসমূহ, নিদ্রাহীনতা, মেয়েদের পিরিয়ড ইরেগুলার, পুরুষদের টেস্টোস্টেরন হরমোন কমে যাওয়া, কিডনি জটিলতা এবং কোষ্ঠকাঠিন্য। এতো সব জটিলতা দেখা দেবার পর সর্বশেষ পরিণতি হয় মৃত্যু।

Anorexia Nervosa রোগটির চিকিৎসা তুলনামূলক অন্যসব রোগের থেকে ভিন্ন ও জটিল। এ রোগে আক্রান্ত ব্যক্তি নিজেও বুঝতে পারে না বা বুঝতে চায় না যে তারা কোন রোগে আক্রান্ত।এই রোগীরা যেহেতু খুব কম খাবার গ্রহণ করে তাই এদের খাবারের তালিকা খুব টেকনিক্যালি মেইনটেইন করতে হবে।রোগীর অবস্থা বেশি আশঙ্কা জনক হলে অবশ্যই হাসপাতালে ভর্তি করতে হবে।

এই রোগীদের প্রচুর কাউন্সেলিং করতে হয়। তাদের বুঝাতে হবে সুস্বাস্থ্যের সঠিক অর্থ এবং এর সুফলতা।আর আমরা যারা আশেপাশে আছি, আমাদের সকলের উচিত তাদের শুভাকাঙ্ক্ষী হয়ে পাশে থাকা।

আরও পড়ুন

শিশুর শারীরিক বৃদ্ধির জন্য যা খাওয়াবেন

বেশিরভাগ শিশুই খাওয়ার ব্যাপারে উদাসীন। তাদেরকে জোর করে খাওয়াতে হয়। আর পুষ্টিকর খাবার না পেলে শিশুর শারীরিক বৃদ্ধিও ধীর গতিতে হয়। তাই আপনার শিশুকে কোন ধরনের খাবার নিয়মিত দিলে সে দ্রুত বেড়ে উঠবে, তা জেনে নেয়া জরুরি। পর্যাপ্ত পুষ্টি পেলে শিশুর শরীরের গ্রোথ হরমোন নির্গত হয়, এর ফলে তার বৃদ্ধি হয় দ্রুত। শিশুদের যেসব খাবার নিয়মিত খাওয়াবেন-

ডিম: প্রচুর প্রোটিন থাকে ডিমে, যা শরীরের মাংসপেশী ও কোষ গড়ে উঠতে সহায়তা করে। ডিমে যে ভিটামিন ডি থাকে,তা শরীরে ক্যালসিয়াম শোষণে ভূমিকা রাখে। এতে শিশুর হাড় গড়ে উঠে ও বৃদ্ধি হয়।

দই: প্রোটিন, ক্যালসিয়াম, ভিটামিন ও অন্য সব পুষ্টি উপাদান থাকে দইয়ে। এতে থাকা প্রোবায়োটিক্স পাকস্থলী ভালো রাখে ও প্রয়োজনীয় পুষ্টি উপাদান শোষণে সহায়তা করে।

সবজির বীজ: সয়া সবজির বীজ, শিমের বীজ সহ বিভিন্ন সবজির বীজে প্রচুর প্রোটিন থাকে, যা হাড় তৈরিতে ভূমিকা রাখে। ভিটামিন ডি, ক্যালসিয়ামের খুব ভালো উৎস এসব বীজ। তাই শিশুকে স্বাস্থ্যকর বীজ খাওয়ান।

খাদ্য শস্য: বিভিন্ন খাদ্য শস্যে অ্যামাইনো এসিড, ভিটামিন বি, ম্যাগনেসিয়াম, সেলিনিয়াম, জিংক, আয়রন ও ক্যালসিয়াম থাকে, যা শিশুর শরীর গঠনে খুব সহায়ক।

শুকনো ফল: শুকনো ফলে ওমেগা থ্রি ফ্যাটি এসিড, পুষ্টি উপাদান, ভিটামিন ও মিনারেল থাকে। এতে আঁশ ও অ্যান্টি অক্সিডেন্ট থাকে অনেক, যা শিশুর শরীর বৃদ্ধি করতে পারে।

শাকসবজি: সবুজ শাকসবজিতে প্রচুর ভিটামিন সি, কে, ক্যালসিয়াম, আয়রন, ম্যাগনেশিয়াম ও পটাশিয়াম থাকে। তাই শাকসবজি হাড় মজবুত করে ও শরীর সুস্থ রাখে। তাই শিশুকে শাক সবজি খাওয়ান

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *